এই লোকটির আসল পরিচয় জানলে আপনি যেমন চমকে উঠবেন তার থেকে বেশী অবাক হবেন লাইফ News

এই লোকটির আসল পরিচয় জানলে আপনি যেমন চমকে উঠবেন তার থেকে বেশী অবাক হবেন

এই লোকটির আসল পরিচয় জানলে আপনি যেমন চমকে উঠবেন তার থেকে বেশী অবাক হবেন

ছবিটা দেখে অনেকেই হয়তো ভাবছেন কোন গরীব ক্ষুধার্ত মাদ্রাসায় পড়ুয়া ছাত্রের খাবার খাওয়ার ছবি ফেসবুকে আপলোড করলাম কেন?

কিন্তু নাহ!
আপনার ধারণা সম্পূর্ন ভূল।
এটা মাদ্রাসায় পড়ুয়া কোন সাধারন হুজুর নয়।
তাহলে আপনার মনে এখন নিশ্চয়ই প্রশ্ন জেগেছে, এই ব্যক্তি কে তাহলে?
কি তার পরিচয়?

এই লোকটির আসল পরিচয় জানলে আপনি যেমন চমকে উঠবেন তার থেকে বেশী অবাক হবেন।



এই নিরহংকার সাদাসিধে সুন্নাতি পোশাক পরিহিত ব্যক্তি আর কেউ নন।

তিনি হলেন আমেরিকার শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যাথলজি বিভাগের প্রধান প্রফেসর, মেডিকেল স্কলার এবং অসংখ্য পুরস্কারপ্রাপ্ত গবেষক ডাঃ মোঃ হুসাইন আবদ আল-সাত্তার (Dr. Hussain A. Sattar)

তিনি প্রত্যক্ষভাবে হাজার হাজার মেডিকেল ছাত্র-ছাত্রীর শিক্ষক। আর পরোক্ষভাবে তার রচিত "Fundamentals of pathology" নামক গ্রন্থের মাধ্যমে তিনি যেন বিশ্বের অন্যান্য ডাক্তারদের শিক্ষক। মেডিকেল জগতে তিনি "Creator of Pathoma" হিসাবে পরিচিত।



আমাদের দেশে কোন মেডিকেল কলেজে অথবা অন্যকোন নামধারী ভার্সিটিতে অধ্যয়ন করলে তার যেন অহংকার এবং দাম্ভিকতার সীমা থাকেনা। টুপি,পান্জাবী, দাড়ি দেখলেই অনেকে মনে করেন, ছেলেটা হয়ত মাদ্রাসায় পড়ুয়া কোন 'কাঁঠমোল্লা'।

অথচ এই মহান ব্যক্তির পোশাকটা কিন্তু আমাদের বিবেচিত মাদ্রাসায় পড়ুয়া 'কাঁঠমোল্লাদের' পোশাকের মতোই। কিন্তু তাঁর মনে যেমন কোন অহংকার নেই তেমনি ভাবে নেই কোন দাম্ভিকতা! আর এমনি জীবন হওয়া উচিত আমাদের সবার। ❤

অতএব নিজেকে বদলান, নিজের দৃষ্টিভঙ্গি বদলান, দেখবেন দুনিয়াটা বদলে গেছে।

Ahmed Apu

 

Hanif Wahid

গত পহেলা বৈশাখের ঘটনা।

রাস্তায় হাটাহাটি করছি,সুন্দরী মেয়েটা আমার দিকে এগিয়ে এসে বললো, ভাইয়া একটা কথা বলতে পারি?
আমি মেয়েটির দিকে তাকিয়ে বললাম, জ্বি বলুন।
মেয়েটা বললো, আপনাকে আমার চেনা চেনা মনে হচ্ছে, কোথায় দেখেছি বলুন তো।

 

আমি মনে করতে পারলাম না মেয়েটাকে আগে দেখেছি কিনা। মেয়েটা দরাজ গলায় বললো, নিশ্চয়ই আপনাকে কোথাও দেখেছি।
আমি বললাম, দেশটা ছোট,কোথাও দেখে থাকতে পারেন।
মেয়েটা হেসে দিয়ে বললো, আমার নাম লুবনা, আপনি?
আমি বললাম, আমার নাম হানিফ ওয়াহিদ।
আমি কি আপনার সাথে কথা বলতে পারি?
অবশ্যই।

আমার এক আত্মীয় অসুস্থ,সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে ভর্তি। সময়ের অভাবে দেখতে যেতে পারি না।পহেলা বৈশাখের দিন তাকে দেখতে গেলাম। তাকে দেখে ফিরে আসার সময় মনে হলো, আজ পহেলা বৈশাখ, জিয়া উদ্যান থেকে একটু ঘুরে গেলে কেমন হয়? যেই ভাবা সেই কাজ।রিকসা নিয়ে চলে এলাম জিয়া উদ্যান। তখন সন্ধ্যা পেরিয়ে গেছে, রিকশা ভাড়া দিতে গিয়ে দেখি মানিব্যাগ নাই। মাথায় হাত!

সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে আত্মীয়ের ওখানে ফোন দিলাম, তারা জানালো মানিব্যাগ ওখানে ফেলে এসেছি। একজন বললো, ভাই আপনি ওখানে থাকেন, মানিব্যাগ নিয়ে আসছি।



আমি রিকশাওয়ালা কে ডেকে বললাম, ভাই তুমি অপেক্ষা কর আমি তোমাকে ডাবল ভাড়া দেবো।

আমি ব্রিজের কাছাকাছি হাটাহাটি করছি মানিব্যাগের অপেক্ষায়। একবার এই মাথায় আসছি আবার ও মাথায় যাচ্ছি। সংসদ ভবনের পুকুরের সিঁড়িতে কিছুক্ষণ বসলাম। আমার পিছনে দাড়িয়ে আছে একটা মাইক্রোবাস। মাইক্রোবাসের সামনে মেয়েটি দাড়িয়ে আছে। কয়েকজন ছেলেকে মেয়েটির সাথে কথা বলতে দেখলাম। তারা এখন জটলা করে দুরে দাড়িয়ে আছে।

আমি উঠে মাইক্রোবাস অতিক্রম করার সময় মেয়েটা আমাকে ইশারা করলো।
মেয়েটা বললো, ভাইয়া আপনি কি করেন?
আমি বললাম, তেমন কিছু করি না।


আমি লক্ষ্য করলাম, মেয়েটা আমার সাথে কথা বলছে আর সেই ছেলেগুলোর দিকে তাকাচ্ছে। আমার কান খাড়া হয়ে উঠলো। ছেলেগুলো গাড়ির উল্টো দিকে এসে দাড়ালো।
মেয়েটা বললো, ভাইয়া কি বিবাহিত?
আমি বললাম, কেন?.
না এমনিতেই জানতে চাইছিলাম। আমার মনে হচ্ছে আপনি বিয়ে করেন নি।আপনি কোথায় থাকেন?

মেয়েটা এমনভাবে দাড়িয়েছে, আমি তাকে ওভারটেক করতে পারছি না,মেয়েটা আমাকে কথার ফাঁকে গাড়ির দিকে নিয়ে যেতে চাইছে। গাড়ির দরজা খোলা, ড্রাইভার গাড়িতে বসে আছে। বিপদ আচ করার চেষ্টা করছি। ছেলেগুলি উসখুস করছে শিকার ধরার অপেক্ষায়। আমি সতর্ক। মেয়েটা কথা বলে আমাকে আটকাতে চাইছে

মেয়েটা বললো,এইটা আমার গাড়ি, আপনি কোথাও যাবেন? আপনাকে আমার খুবই পরিচিত মনে হচ্ছে। একটু কথা বলতাম।
আমার মনে হচ্ছে মেয়েটা আমাকে গাড়ির দরজার দিকে ঠেলছে।


আমি বললাম, ওপাশে আমার বন্ধুরা অপেক্ষা করছে। বলেই এক হ্যাচকায় সামনে এগুতে এগুতে বললাম, এই দাড়া আসছি বলেই এক দৌড়ে রাস্তার ওপাশে চলে গেলাম।
আমি রাস্তার এ পাশে আসতেই গাড়িটা ওখান থেকে সরে গেল।


আমার আত্মীয় মানিব্যাগ নিয়ে এসে সব শুনে বললো, ভাই বড় বাঁচা বেঁচে গেছেন। এখানে প্রায়ই অপহরণ, ছিনতাই হয়,একটা খারাপ চক্র এখানে ঘুরে বেড়ায়।

আমি আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করলাম।

 

Other News