পুরুষ সহকর্মীকে যেভাবে যৌন হেনস্থা করলেন রিয়া! বিনোদন News

পুরুষ সহকর্মীকে যেভাবে যৌন হেনস্থা করলেন রিয়া!

 

এবার পুরুষ সহকর্মীকে যৌন হেনস্থা করার অভিযোগ উঠেছে অভিনেত্রী রিয়া সেনের বিরুদ্ধে। যদিও কোনো অভিযোগ দায়ের হয়নি। তবে যা ঘটেছে তাকে যৌন হেনস্থাই মনে করছে ইন্ডাস্ট্রির একটা বড় অংশ।

ঘটনাস্থল রিয়ার আসন্ন ছবি ‘রাগিণী এম এম এস ২.২’-এর শুটিং ফ্লোর। সদ্য ফাঁস হয়েছে ওই ওয়েব সিরিজে রিয়ার একটি হট ভিডিও। যদিও ভিডিও ফাঁস হওয়াকে অনেকেই মনে করছেন পাবলিসিটি স্টান্ট। ওই ভিডিওতে রিয়ার সঙ্গে দেখা গিয়েছে নিশান্ত মালকানিকে।

Bisk Club
সম্প্রতি এক সাক্ষাত্কারে নিশান্ত জানিয়েছেন, রিয়ার সঙ্গে তার শুটিংয়ের অভিজ্ঞতা। নিশান্তের মতে, এক সময়ের ক্রাশ রিয়ার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ দৃশ্যে অভিনয় করাটা তাঁর কাছে এক দুরন্ত অভিজ্ঞতা। কিন্তু ওই শুটিংয়েই নাকি একটু অন্যরকম ঘটনাও ঘটে। কী সেটা?

নিশান্তের কথায়, “লভ মেকিং সিন শুটিংয়ের আগে রিয়া বলেছিল দোস্তানা ২-এ যে ভাবে জন আব্রাহাম প্যান্ট নামিয়েছিল আমারও তেমন করা উচিত। আমি তখন ওকে সিরিয়াসলি নিইনি। কিন্তু শটের সময় রিয়া হঠাৎই আমার প্যান্ট টেনে নামিয়ে দেয়। আমি চমকে গিয়ে বলেছিলাম, আরে কী করছ! অন্তত যা করছ তার আগে বলবে তো!' এর উত্তরে নাকি রিয়া জানিয়েছিলেন, নিশান্তের অসাধারণ ফিগার। আর মেয়েরা তাকে এ ভাবে দেখতে পছন্দ করবেন!

আগে থেকে না বলে হঠাৎই শুটিংয়ে নিশান্তের প্যান্ট টেনে নামিয়ে দেয়ায় রিয়া তার যৌন হেনস্থা করেছেন বলেই মনে করছে ইন্ডাস্ট্রির একটা বড় অংশ। তবে নিশান্ত এ নিয়ে এখনও পর্যন্ত কোনও অভিযোগ জানাননি।

 

 

 

প্রেম ও শারীরিক সম্পর্কঃ এক টুকরো মাংস ও প্রতারণার কাহিনি

বোনের প্রশ্নঃ

আমাকে একটু হেল্প করবেন? আমি খুবই অসহায় ও বিষন্নতায় অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়েছি। আমি কান্নাটুকু পর্যন্ত থামাতে পারছি না। আমি ১৭ বছরের একজন বালিকা। আমি একটা ছেলের সাথে মেসেজে কথাবার্তা বলতাম, এভাবে কথাবার্তা চালিয়ে যাবার কারণে একটা সময়ে ঐ ছেলের সাথে ইমোশনালি আটকে যাই। কিন্তু এখন আমি খুবই অস্থির হয়ে পড়েছি, আমি তাওবা করছি এরপরে যেসব ঘটনা ঘটেছে সেগুলোর জন্য। আমি গত বছর তার সাথে সাক্ষাৎ করেছিলাম, তার সাথে বাজে জিনিসও (শারীরিক সম্পর্কসহ অন্যান্য) করেছিলাম। আমি জানি আমি খুব খারাপ হয়ে গেছি, আমি আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাই। আমি জানি এই পৃথিবীটা খুবই স্বল্প সময়ের, আমি চাই না জাহান্নামে যাই এই ক্ষণিকের পৃথিবীতে অবাধ্যতার কারণে। আমি জানি এই লোকের সাথে আমার ভবিষ্যৎ নেই, কিন্তু তবুও কেন আমি তাকে বারবার অনুভব করি? যদিও সে আমাকে তার আসল (মন্দ) চেয়ারাটাও দেখিয়েছে। এমনকি সে আমাকে এও বলেছে যে ‘আমি আর তোমাকে ভালোবাসি না'। আমি এখন মনে করি ইসলামই কেবল আমাকে সুখের দরজাটা দেখিয়ে দিতে পারে। আমি প্র্যাক্টিজিং মুসলিমা না, আমি প্রচূর পাপও করেছি, আমার জন্য কি আর কোনো আশা অবশিষ্ট আছে? প্লিজ ভাই, আমাকে সহায়তা করুন।

উপস্থাপকঃ

ভাই নুমান আলী খান, আমরা দেখেছি এই বোনটি অনেক পাপ করেছে, ভুল করে ফেলেছে। আমরা জানি আল্লাহ খুবই করূণাময়, অসীম দয়ালু, তিনি গুনাহ ডেকেও রাখেন, আমরা চাই না এই বোনটি আশাহত হোক। আপনি বোনের প্রশ্নটি শুনেছেন, তিনি ভুল করে ফেলেছেন, একটা বাজে ছেলের সাথে আটকে গেছে। অনেক সময়েই বোনেরা এসব বিষয়ে বড় ধরণের বোকামি করে থাকে আর ছেলেরা শিকারীর মতো এর সুযোগ নেয় আর পরে সে সব ছেড়ে ভেগে পড়ে। আমরা চাই না এরকম আর কোনো বোনের বেলায় হোক আর এজন্য আমরা চাই আপনার আলোচনা থেকে সবাই উপকৃত হোক এইসব বিষয়াবলীতে।

উস্তাদ নুমান আলী খানঃ

ধন্যবাদ আপনাকে।

প্রথমত, পবিত্র কুরআন ও হাদীসে ‘ফাহশাহ’ (নির্লজ্জতা, বেয়াহাপনা, লজ্জাহীনতা) কে একটি সর্বোচ্চ পাপ হিসেবে বলা হয়েছে, প্রকৃতই একটা বড় ব্যাপার এটি। আমার দৃষ্টিতে আজকের যুগে পিতামাতার অবাধ্যতার পরেই এই কাজটি যুবক-যুবতীরা সর্বাধিক করে থাকে। এর শুরু হয়ে থাকে টেকনোলজি (প্রযুক্তি) দিয়ে – সেটা হতে পারে ফেইসবুক, মেসেঞ্জার, হোয়াটসঅ্যাপ, টুইটার, মেইল এবং ইন্টার্নেটের পর্নোগ্রাফি ইত্যাদি। এগুলো দিয়ে প্রথমে শুরু হয়ে এর বাস্তবিক রুপ ধারণ করে শারীরিক সম্পর্কের মতো বড় নির্লজ্জ ও নিকৃষ্ট কর্মে – আর এটি মুসলিম-অমুসলিম নির্বিশেষে সবার ক্ষেত্রেই হয়ে থাকে।

বোনের প্রশ্নটির দিকে আগে আসি, কোনো আশা আছে কি না এবং এরপরে আমরা এসব সম্পর্কের বিপদাপদ ও অন্যান্য ফল নিয়ে আলোচনা করবো।

এই বোনের জন্য আশা বাকী আছে কি? আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’য়ালা প্রত্যেক পাপীকেই বলেন আশা হারিও না, নিরশা হয়ো না। তিনি খুবই ইন্টারেস্টিং শব্দ ও বাক্য চয়নের মাধ্যমে বলছেন,

“হে আমার বান্দারা! তোমরা যারা নিজেদের ওপর জুলুম করেছ (আল্লাহর সীমারেখার বিরুদ্ধে এবং নিজেদের অপরাধের কারণে নিজেরাই ভোগান্তিতে পড়ে), তারা আল্লাহর রহমত থেকে নিরাশ হয়ো না। নিশ্চয় আল্লাহ তোমাদের সকল গুনাহ মাফ করে দিবেন। তিনি অতিব ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু”। [ সূরা জুমারঃ ৫৩]

তাওবাহর ব্যাপারে আল্লাহর এই মূলনীতি নিয়ে আলোচনার পূর্বে আমি সূরা ফুরকানের একটা গুরুত্বপূর্ণ আয়াত নিয়ে কথা বলবো। সেটা হলো, আল্লাহ এমন এক ব্যক্তির কথা আলোচনা করছেন যে কাউকে হত্যা করেছে অথবা জিনা (বিবাহ বহির্ভূত অবৈধ শারীরিক সম্পর্ক) করেছে। আমরা এই আয়াত দিয়ে দেখবো বিশুদ্ধ তাওবাহ আসলেই কি জিনিস। আল্লাহ এই ব্যক্তি সম্পর্কে বলেন,

“তারা নয়, যারা তওবা করে, ঈমান আনে ও সর্বদা সৎকাজ করতেই থাকে; আল্লাহ ওদের পাপগুলোকে পুণ্যে রূপান্তর করে দেবেন এবং আল্লাহ ক্ষমাশীল ও পরম দয়ালু।” (২৫:৭০)

এখানে তিনটি জিনিস রয়েছে

(১) তারা তাওবাহ করে আল্লাহর কাছে ফিরে এসেছে।

(২) এভাবে সে নিজের ঈমানকে নবায়ন করেছে আল্লাহ আখিরাত ও অন্যান্য বিষয়ের প্রতি।

(৩) এরপর সে সর্বদা ভালো কাজ করতেই থাকে।

আল্লাহ এদের ব্যাপারেই ঐ আয়াতেই বলেছেন যে, এদের একটা বিশাল পাহাড় পরিমাণ পাপকেও আল্লাহর ক্ষমা ও দয়া দিয়ে সম্পূর্ণ সাওয়াব ও সৎকাজে রুপান্তরিত করে দেবেন!! তিনি আপনার সমস্ত ময়লাকে ডায়মন্ডে পরিবর্তিত করে দেবেন কেবল যদি উক্ত তিনটি কাজ করেন। ঈমান নবায়নের বিষয়ে একটা কথা হলো, এটা কেন দরকার? কারণ হলো, রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেন,

“একজন চোর যখন চুরি করে তখন সে তার ঈমানদার থাকে না”। এভাবে রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেন,

“একজন জেনাকারী যখন জেনার কাজ করে সে তখন আর মুমিন থাকে না”। কারণ জেনাকারীর ঈমান থাকে না বলেই সে লজ্জাহীন (লজ্জা ঈমানের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ যা পাপ থেকে বিরত রাখে) হয়ে খারাপ কাজে পতিত হয়। আর একারণেই তাকে পূনরায় ঈমান আনতে হয়। এটা রাসূলের খুবই গুরুত্বপূর্ণ কথা। আল্লাহ ঈমানের ব্যাপারে কথা বলতে গিয়ে প্রথমেই বলেছেন তার দিকে ফিরে আসো, এরপর ঈমান নবায়ন করো।

এখানে আরেকটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় উপস্থাপক তুলে ধরেছেন, সেটা হলো, যেহেতু একজন এরকম জঘন্য পাপকারী পাপে রত থাকা অবস্থায় ঈমান থাকে না, সে যদি এরূপ অবস্থায় মারা যায় তাহলে তো সে মহা বিপদের মাঝে অবস্থান করছে, যেহেতু তার ঈমান নেই তখন। এরূপ অবস্থা বাংলাদেশেও প্রচূর হয়, যেমন প্রেমিকা প্রেমিকের সাথে দেখা করতে গিয়েছে আর সেখানে প্রেমিক বন্ধুসহ তাকে ধর্ষণ করে খুন করে ফেলেছে। মেয়েটি গিয়েছিলো প্রেমিকের সাথে জিনা করতে, শারীরিক মেলামেশা করতে কিন্তু প্রেমিক আরো কয়েকজনসহ ধর্ষণ করে হত্যাই করে ফেলল যেন কেউ জানতেই না পারে এই ধর্ষণের ব্যাপারে। সে ঈমানহীন অবস্থায় মারা গেল, তাওবার কোনো সুযোগই পেলো না। অথবা কয়েকমাস আগে রাজশাহীতে এক প্রেমিক-প্রেমিকা জুটি হোটেলে লাশরত অবস্থায় দেখা গেলো, হয়তো এই অবৈধ কাজের সুবিধার কারণে হোটেলের কারো সাথে লেনদেনে অসুবিধা হওয়ার কারণে দুজনেই খুন হলো। এরাও কেউ তাওবার সুযোগই পেলো না। এভাবে আজিমপুরে লিভটুগেদাররত মেয়েটিকেও হত্যা করে পালিয়ে গেলো প্রেমিক, তাওবাহর কোনো সুযোগই পেলো না। এভাবে এরা ঈমানহীন অবস্থায় মারা গেলো। অথবা পাপেরত আছে এবং স্বাভাবিক অবস্থায় ভালোই আছে, জীবন ভালোই চলছে; হঠাৎ একদিন কোথাও গমনের সময় রোড এক্সিডেন্টে মারা গেলো, সেও তাওবাহর কোনো সুযোগই পেলো না।

এ ব্যাপারে উস্তাদ নুমান আলী খান বলেন, আলেমরা এ বিষয়ে বলেছেন যে এই ধরণের লোক যেহেতু শাহাদাহ উচ্চারণ করেছে সে হিসেবে মুসলিম কিন্তু ঈমানহীন অবস্থায় মারা গেলো, মানে সে সিরিয়াস সমস্যার সম্মুখীন হবে, অনেক ভয়ানক অবস্থায় সে পড়তে পারে আখিরাতে। এব্যাপারে আরো কঠোর ব্যাখ্যাও আছে উক্ত হাদীস বিষয়ে।

এসব জিনা-অবৈধ শারীরিক সম্পর্ক ও প্রেম বিষয়ে প্রথম কথা হলো, কোনো কথা না বলে একদম স্টপ, ইমেইল, ফেইসবুক, টুইটার এসব বন্ধ করুন এসব, যেন কোনো ধরণের যোগাযোগ না হয়। আল্লাহর বিরপরীতে কারো কোনো কথা শোনার দরকার নেই, আল্লাহর অবাধ্যতায় কোনো ওয়াদা নেই, প্রমিজ নেই, পাপ থেকে বিরত হোন আগে, স্বল্প দুনিয়ার বিপরীতে অনন্ত আখিরাতের ঘরের সৌন্দর্য ও নেয়ামাতকে নষ্ট করাটা পুরো বোকামি, এর মাঝে একটু বুদ্ধিমত্তারও পরিচয় নেই (সমাধান বিষয়ে ১ম ও ২য় পর্বে আরো কিছু বিষয় উঠে এসেছে, সে পর্বগুলো অবশ্যই দেখুন)। আপনি যদি মনে করেন এক থাকার কারণে এসবের প্রভাব ফেলবে, তাহলে একাকী অবস্থান করা বন্ধ করুন, ভালো মানুষদের সঙ্গী হোন, মসজিদে অবস্থান করুন, আল্লাহর ইবাদাহ করুন, আপনার পিতামাতার খেদমত করুন, অন্যান্য ভালো বান্ধবীদের সাথে চলাফেরা করুন। এসবের মাঝে ব্যস্ততা আপনার পাপ করার সুযোগের সময়কে খেয়ে ফেলবে, আপনি পাপ করার সময় পাবেন না ভালো কাজে যুক্ত থাকার কারণে। আগে সত্যিকার এবং নিশ্চিতরূপে তাওবাহ করুন, এসব পাপ শক্তভাবে বন্ধ করুন।

অনেকেই আছে এসবের প্রতি প্রবলভাবে যুক্ত, যুক্ত থাকা অপছন্দও করে, নিজেদেরকে সেজন্য ঘৃণা করে আবার যুক্তও থাকে। যেমন ড্রাক এডিক্টরা ঐসব মাদককে ঘৃণা করে কিন্তু তবুও নেয় আর একারণে তারা নিজেদেরকে আরো ঘৃণা করতে থাকে। সুতরাং এরূপ অবস্থায় সর্বাধিক ফলপ্রসূ কাজ হলো আগে এসব পথ থেকে ফিরে আসতে হবে, বন্ধ করতে হবে পূর্ণরূপে। যে সময়, বন্ধু-বান্ধব এবং সুযোগ এসবের প্রতি আপনাকে নিয়ে যায় সেগুলোর পথগুলো বন্ধ করুন, সম্পূর্ণরুপে। এটা হলো প্রথম কথা।

এখন এই বোন যে ছেলেটির সাথে এভাবে জড়িয়ে গেছে, এর কারণ হলো মেয়েটি ইমোশনালি (আবেগে) জড়িয়ে পড়েছে। আল্লাহ মেয়েদেরকে আবেগের দিক থেকে অনেক বড় করে সৃষ্টি করেছে। এই আবেগকে ভালো পথে পরিচালিত করলে সেটা হয় শক্তিশালী (স্বামী, সন্তান, পিতামাতার প্রতি) জিনিস আর মন্দ পথে পরিচালিত করলে এটাই হয় ধ্বংসের কারণ (অবৈধ সম্পর্কে)। এভাবে ছেলেটি মেয়েটি ইমোশনালি আটকাতে চায়, এজন্য সে যত ধরণের আপাত সৌন্দর্যময় কথা আছে বলে, মিষ্টি যত কথা আছে বলে মেয়েটিকে ফাঁদে ফেলতে চায় (১ম পর্বে আরো বিস্তারিত আছে এসব ফাঁদ বিষয়ে)। এসব কথা ছেলেটির কোনো উদ্দেশ্য না, ছেলেটির উদ্দেশ্য কেবল তার মনের খায়েশ মেটানো – একটাই উদ্দেশ্য। আপনি ইমোশনালি ঘায়েল মানে আপনি দূর্বল এবং ছেলেটি শিকারীর ভূমিকায় হামলার জন্য প্রস্তুত আর হামলার পর আপনি অক্ষত থাকবেন না, যন্ত্রনা ও অসুস্থতার শুরু কেবল। এভাবে ছেলেটির এজেন্ডা বাস্তবায়নের পর ছেলেটির কাছে আপনি এক টুকরো ব্যবহৃত মাংসের খন্ড ব্যতীত আর কিছুই না। দূর হ আমার থেকে, আমি তোকে আর ভালোবাসি না, অন্য কাউরে বিয়ে কর ইত্যাদি। অবৈধ সম্পর্কের ক্ষেত্রে ছেলেদের সাইকোলজি এটাই।

আপনি এই সম্পর্কে আবেগে জড়িয়ে পড়েছেন, ছেলেটিও তার আসল চেহারা দেখিয়ে দিয়েছে, এখন সমাধান হলো আপনি তার থেকে পূর্ণরূপে ফিরে আসুন, বন্ধ করুন পাপের খেলা। তাওবাহ করুন পূর্ণরূপে, আপনার দ্বীন শিখতে শুরু করুন, আল্লাহর ইবাদাতে মগ্ন হোন, ভালো কাজে সময় ব্যয় করুন।

আমি জানি আপনি অনেক কান্নাকাটি করেছেন। কিন্তু এই কান্নাকাটি ঐ ছেলের জন্য না করে আল্লাহর কাছে তাওবাহর জন্য করুন। ঐ ছেলের জন্য আপনার কান্না কোনো কাজে দেবে না, আল্লাহর জন্য, আল্লাহর কাছে কান্নাকাটি করে বিশুদ্ধ তাওবাহ করুন। আল্লাহ সর্বাধিক ভালোবাসেন ঐ ব্যক্তিকে যে তাওবাহ করে তার জন্য চোখের অশ্রু ফেলে, এই কান্নায় ভেজা চোখ আল্লাহর কাছে অধিক প্রিয়, বান্দাটি অধিক ভালোবাসার পাত্র।

------------------------------------------------------------------------------------------

আমাদের এই ভালো কাজে কেউ শরিক হতে চাইলে, ভলিউন্টার হিসেবে কাজ করতে চাইলে মেসেজ দিতে পারেন, হয়তো আপনার কাজের মাধ্যমে অনেকেই আল্লাহর পথে আসতে পারে, আপনার জন্য এটাই হয়তো নাজাতের উসিলা হতে পারে আল্লাহর রহমতে। আল্লাহর কাজ করার সুযোগ সবার হয় না, কেবল আল্লাহ যাদের বিশেষ নেয়ামতে রাখেন তাদেরই তিনি তাওফিক দেন।

 

ছেলেরা কিভাবে মেয়েদের কৌশলে ফাঁদে ফেলে - উস্তাদ নুমান আলী খান (১ম পর্ব)
******************************************************************************
“এবং তিনি জানেন যা তোমরা ম্যানুফ্যাকচার করো”। আল্লাহ এখানে ছেলেদের উদ্দেশ্য করে বলছে যে তারা একটা মেয়েকে যে কৌশলে, যে প্ল্যান করে নিজেদের দিকে প্রেমে, জেনায় বা মেলামেশার দিকে টানে। এই “ম্যানুফ্যাকচার” মানে কি? ম্যানুফ্যাকচার মানে উৎপাদন। উৎপাদনে কি থাকে? একটা সুনির্দিষ্ট প্ল্যান! হ্যা, একটা ছেলে যেকোন মেয়েকে কৌশলে নিজের আয়ত্বে আনতে প্ল্যান অনুযায়ীই আগাতে থাকে।

যেমন ধরূন একটা গাড়ি তৈরি করতে কতগুলো পার্টস লাগবে, কতটুকু এবং কি কি রঙ লাগবে, কোন অংশ আগে জোড়া দিতে হবে, কোন অংশ শক্ত হতে হবে, কোন অংশ নরম হবে, কোনটিকে কত বছরের টেকসই হিসেবে দিতে হবে, গাড়িটি তৈরি করতে কত সময় লাগবে, মার্কেটিং কেমন করবো, বিক্রি করবো কোথায়-কীভাবে ইত্যাদি সবই প্ল্যান করা থাকে পূর্ব থেকেই। এই প্ল্যান আশাপূর্ণ ফল লাভের জন্য খুবই কার্যকরী আর বিপরীতে প্ল্যান না থাকলে লস হবে। এভাবে একটা ছেলে যখন মেয়েকে নিয়ে গেইমের মতো প্ল্যান করে, সেটাও আল্লাহ জানে।

প্রথমে ছেলেটা মেয়ের দিকে তাকায়, এরপর পিটপিট করে-মিটমিট করে তাকানো, তারপর একটু কৌশলে জিজ্ঞেস করা তোমার ফেইসবুকে একাউন্ট আছে? কি নামে? এভাবে কৌশলে একটু কাছে এসে বলে আমি আসলে তোমাকে ইসলাম বিষয়ে আরো হেল্প করতে চাই, ঐ জায়গায় কিন্তু ইসলামী আলোচনা হয়, চলো না যাই একদিন, ঐ ফেইসবুক গ্রুপে অনেক সুন্দর আলোচনা হয়, ঐখানে জয়েন করাই? আর মেয়েটিও এভাবে বলে হ্যা, অবশ্যই, এই যে আমার ফেইসবুক একাউন্ট, আমাকে ভালো ভালো গ্রুপে এড করে দিবেন প্লিজ। এভাবে ছেলের সাথেও এড হওয়া শুরু হলো, সাথে বিভিন্ন গ্রুপেও।

এভাবে ছেলেটা সাধারণ কথাবার্তা চালাতে থাকে মেয়েটির সাথে –তুমি কি হোমওয়ার্ক করেছো? তোমার এসাইনমেন্টের টপিক যেনো কি ছিলো? এসবই ছেলেটির প্ল্যানের অংশ, দীর্ঘ প্ল্যানের অংশ – এভাবে ছেলেটি মেয়েটিকে কাছে পেতে চাচ্ছে, একান্তে, একার করে, প্রেমের দিকে-জেনার দিকে-আল্লাহর অবাধ্যতার দিকে-শয়তানের সাথী হতে, জাহান্নামী হতে।

ছেলেটি জিজ্ঞেস করে, তোমার এসাইনমেন্ট কি শেষ হয়েছে? তুমি তো এক্সপার্ট, আমাকে একটু পরামর্শ দাও তো কিভাবে ভালো করা যায়। ক্লাসে একশত ছাত্র থাকতে একটি মেয়ের কাছে কেন সে জিজ্ঞেস করছে? প্ল্যান, পুরোটাই ম্যানুফ্যাকচারিং এর প্ল্যান। আজকে সে একটু কথা বলবে, এরপরের দিন আরো একটু বেশি, এরপরে মোবাইল একটু ফ্রি হলে মোবাইল নাম্বার আদান প্রদান, এরপরে একদিন বলবে, হেই, ঐ রেস্টুরেন্টের দারুন একটা রেসিপি আছে, চলো যাই। এরপরে কোন একদিন বলবে, এই একটু একা আসো তো, চলো একটু নিরিবিলিতে একা গল্প করি, একটু হাটাহাটি করি।

দেখবেন আপনি যে কোর্সে সাইন করেছেন ছেলেটিও ঠিক সেই কোর্সেই সাইন আপ করেছে। সে বলে বসবে, তুমি ঐ কোর্সের না? আর সে বোঝাবে আরে আমিওও তো ঐ কোর্সে-ই নিয়েছি! এটা তার প্ল্যানের অংশ, সে প্ল্যান করেই করেছে এটা। এমন নয় যে ছেলেটি ঐ কোর্সটি ভালোবাসে, বরং এখানে আপনিই তার প্ল্যানের অংশ, কোর্সটি নয়। আর তার একই কোর্সের কথা শুনে আপনিও আহলাদে আটখানা হয়ে বলেন, কি আশ্চর্য!! একই কোর্স! অথচ ছেলেটির কাছে আপনি তার গেমের অংশ, প্ল্যানের অংশ, জেনার অংশ, জেনার দিকে বাগানোর শুরুর অংশ। এটা মেয়েদের গাফলাহ – অতি মাত্রার অবহেলা। কিছু মেয়ে এগুলো বুঝতে পারে কিন্তু অনেক মেয়েদেরাই এগুলো বুঝতে পারে না। এই সব মেয়েদের এতো বেশি মাত্রার সরলতা-বোঝহীনতা খুবই অসস্বতিকর। তারা এতটাই উপলব্ধিহীন সরল যে জানেই না কি হতে যাচ্ছে চারিপাশে! আপনার চিন্তা ছেলেটি বলছে এসাইনমেন্টে সহযোগিতা করতে? আপনার মাথা খারাপ? কোন দুনিয়ায় থাকেন আপনি?

এই ছেলেটি এসে আপনার কাছে ইসলাম নিয়ে জিজ্ঞেস করে। আপনি ভাবেন আহ, ছেলেটি ইসলাম নিয়ে জানতে চাচ্ছে। গতকাল আপনি তার সাথে চার ঘন্টা শরিয়া নিয়ে কথা বলেছেন। একজন আলেমকে এসে জিজ্ঞেস করলেন, আমি কি তার সাথে আলোচনা চালিয়ে যেতে পারি? সে অনেক কিছু জানতে চায় ইসলাম নিয়ে, অনেক প্রশ্ন আছে তার, আমি কি তাকে সাহায্য করতে পারি? এই ধরুন তার প্রশ্নগুলো নিয়ে কলেজ/ভার্সিটিতে বসে তাকে উত্তর দেওয়া, একটু রেস্টুরেন্টে খেতে খেতে বা মাঠে বাদাম খেতে খেতে তার প্রশ্নগুলোর যুক্তিসই উত্তর দেওয়া। আলেম বলল, আমার পাঠিয়ে দেন, আমি কথা বলি, তার সব প্রশ্নের উত্তর দেই। আপনি বলেন, না না, সে আমার সাথে ঐগুলো নিয়ে কথা বলতে পছন্দ করে, কমফর্ট ফিল করে – যেহেতু প্রথম থেকেই আমিই তার ইসলাম নিয়ে কথা শুরু করেছিলাম। এরপরে কিছুদিন পরে বলবে, আমি ভালো হতে চাই, আমি তোমাকে বিয়ে করতে চাই, কারণ আমি তোমার কাছেই ইসলাম শিখেছি, তোমার সাথে থেকেই আরো শিখতে চাই আর এটা তোমার সাথে না থাকলে হবে না।

আমি ছেলেটির ব্যাপারে কিছু বলতে চাচ্ছি না আর! কিন্তু আপনার কি মনে হয় বিষয়টা সম্পর্কে? এই ছেলেটি প্ল্যান করেই এসব করেছে, ম্যানুফ্যাকচারিং এর প্ল্যান। এইটা কেবল আপনার জন্য ইসলামে আসা না, সে আপনাকে পাওয়ার জন্যই এত কিছু করেছে! তার নিয়ত আপনাকে পাওয়া, প্রশ্ন জিজ্ঞেস করা, আপনার আগ্রহের জায়গায় আসা ছিলো তার প্ল্যান, আপনার সাথে কথা বলার বাহানা, আপনার কাছে ভালো সাজার পরিকল্পনা, আপনার কাছে আসার গল্পের সূচনা – প্রেম-জেনার প্ল্যানের অংশ।

মেয়েদের এসব ব্যাপারে এত বোকা হলে চলবে না। তাদের শক্ত কথা শেখা উচিৎ, ছেলেদেরকে দূরে সরিয়ে রাখার মতো ভয়েস তাদের দেখানো দরকার। ওহ, আপনি কি ফেইসবুকে আছেন? – আছি কি না আছি তাতে আপনার কি? অ্যাআ? এভাবে শক্তভাবে বলে দিন। সে আর আপনার চারপাশে ভুলেও জিজ্ঞেস করার জন্য আসবে না, পর্ব শেষ, খতম। এভাবে বললে আপনার আর ঐ ধরণের সমস্যা থাকবে না। যা করতে হবে আপনাকে সেটা হলো শক্ত কথা বলা। আপনার ভয়েস সোজাসুজি রাখুন, সরাসরি শক্ত কথা বলে দিন, এই ক্ষেত্রে প্রস্রয় না দেওয়ার ক্ষেত্রে আপনাকে শক্ত ভয়েস নিতেই হবে ছেলেটির প্ল্যানের অংশ থেকে নিজেকে নিরাপদ রাখতে, নিজেকে অনাগত সমস্যা থেকে বাঁচাতে।

আপনাকে আরো একটা কাজ করতে হবে, ছেলেদের দেখে কখনই হাসবেন না, কখনই না। আপনি যখন একটা ছেলের দিকে তাকিয়ে হাসি দেন, আপনি নিজেও জানেন না কতটুকু কি করলেন। ছেলেটির মাথার মধ্যে তখন চিন্তা আসে, অহহহহহ, ইয়াহহুউউ, অ অ অ ...। আপনি কল্পনাও করতে পারবেন না ছেলেটির ওপর হাসির প্রভাব কত বিশাল হতে পারে। অহ মাই গড, তার হাসি কি যাদুকরী, কি অপরূপ সে হাসি – ছেলেটি একেবারেই এডিক্টেড হয়ে যায় এই হাসির প্রতি অথচ আপনি কিচ্ছু জানে না, আপনার কোনো ধারণাই নেই কি করেছেন। এরপর ছেলেটি কি করে? ঐ যে ম্যানুফ্যাকচারিং প্ল্যান, সেই গেইম প্ল্যান, আপনাকে নিয়ে প্ল্যান করে ফেলে দীর্ঘ দিনের, কীভাবে বশে আনা যায়। এরপর আপনাকে সে আপনার সামনে এমন কিছু করে, এমন কিছু বলে যা আপনাকে হাসায়, আপনাকে আনন্দ দেয়। আপনাকে কেউ বারণ করলে, আপনি চট জলদি জবাব দিয়ে দেন, আমি তো অন্য কিছু করছি না তার সাথে, সে খুবই ফানি – জাস্ট এটুকুই! ইন্নাল্লাহা খাবিরুম বিমা ইয়াসনাউন – আল্লাহ এসব কিছুই জানে। অথচ আপনি চাইলেই আপনার চক্ষু এবং মাথাকে অবনত করতে পারতেন, হাসি না দিতে পারতেন – তাহলে ছেলে আগ্রহবোধ করতো না, এরকম প্ল্যান করতে পারতো না, আপনার প্রভাব তার ওপর পরতো না। আপনি যদি কেবল আপনার হাসি না দিতেন, নিজেকে অবনত করে রাখতেন, শক্ত ভয়েস দাড় করাতে পারতেন, তাহলে সে এতো প্ল্যান করতে পারতো না- তাহলে সব কিছুই পালটে যেতো – সে আপনার কোর্সে এনরোল করতো না, আপনার ফেইসবুক একাউন্ট চাইতো না, মেসেজে চ্যাট করতো না, ধীরে ধীরে একান্তে মেলামেশার সুযোগ পেতো না – এগুলো কিছুই হতো না আপনি সুযোগ না দিলে। আপনি চাইলেই আপনার নিজেকে এবং আরেকজনকে শয়তানের প্ল্যান থেকে রক্ষা করতে পারতেন – কিন্তু আপনার বোঝহীন উপলব্ধির কারণে, আপনার সুযোগ দেওয়ার কারণে, দৃঢ় ভয়েস না থাকার কারণে সবকিছু ভিন্ন পথে, ভ্রষ্ট পথে চলতে থাকে।

আর এখন তো ফুসবুকের বদৌলতে অনেক কিছু হচ্ছে! ক্লাসের গ্রুপ ফটো! ইফতার পার্টির মিক্সিং ফটো এটা অমুক রেস্টুরেন্ট! এখন আপনি ফেইসবুকে শত শত ঘন্টা হাসির ফটো দিয়ে রাখছেন! আর কেউ আপনাকে এ ব্যাপারে বললেই তাকে এক্সট্রিম বলেন। অকে, আপনি এক্সট্রিমই ই থাকেন এসব ক্ষেত্রে, এইসব ফেইসবুকের কাজ, গ্রুপ ফটো, এমনকি ফেইসবুকে একাউন্ট না থাকলেও আপনি বেচে থাকবেন।

আপনাকে আপনার ওয়াইফ নিয়ে জড়াজড়ির ছবি ফেইসবুকে দিতে হবে কেন? এগুলো ঘরের জিনিস, আপনি বাইরে আনবেন কেন এগুলো? এগুলো ঘরের একেবারেই ভেতরে থাকবে, এজন্য আল্লাহ কারো ঘরে ডুকতে সালাম বা নক করে অনুমতি নিতে বলছেন অথচ আপনি সেটাই পাবলিকলি দিচ্ছে সবার সামনে! এখন তো তার নক করারও দরকার হয় না, জাস্ট ক্লিক করলেই হলো – আপনি নিজে অন্যের ঘরে চলে এসেছে! আল্লাহ আপনাকে গোপনীয়তা রক্ষার জন্য নকের ব্যবস্থা করলেন, আর আপনি সেটা থেকে বেরিয়ে মানুষের ঘরে ডুকে গেলেন!

আমি বলছি না ফেইসবুক হারাম, কিন্তু আপনাকে মাথায় রাখতে হবে এটা সঠিকভাবে ব্যবহার করতে – আপনার হাসি ঘন্টার পর ঘন্টা, দিনের পর দিন কেন দেখবে আরেকজন? কেন সে সে হাসি দেখে আপনার পেছনে গেইম প্ল্যান করবে? কেন আপনার অন্দর মহলের বিষয়াদি ফেইসবুকে অন্যের জন্য ওপেন করে দিবেন? ফেইসবুক ব্যবহার করলে সুন্দর করে করেন, কার্যকরীভাবে করেন এর ব্যবহার।

প্রেম ও হারাম সম্পর্কঃ বাঁচার উপায় - উস্তাদ নুমান আলী খান, শাইখ আব্দুন নাসির জাংদা, শাইখ ওমার সুলেইমান

আপনি আল্লাহর অবাধ্য হয়ে একটা সম্পর্কের ভেতর তার রাহমাহ কামনা করতে পারেন না। কিভাবে আল্লাহর অবাধ্য হয়ে তার নিকট রাহমাহর আশা করেন? এর সুযোগও আপনি পাবেন কি না সেটা কে গ্যারান্টি দেবে আপনাকে? আপনি যদি সম্পর্ক করেই ফেলেন, তবুও তাওবাহ করে সেটাকে হালাল করার চিন্তা করলেও সেটা যে হারাম কাজে জড়ায়নি তার মতো নয়। আপনি তাওবাহ করবেন আবার এমনও ভাববেন যে “তাকে ছাড়া আর কাউকে বিয়ে করবোই না”। এর মানে আপনি হারাম সম্পর্কেই থাকতে চাচ্ছেন। সুতরাং পাপহীন ব্যক্তি এবং পাপ করে সেখানে আটকে থেকে তাওবাহকারীর অবস্থা আল্লাহর কাছে মর্যাদাগতভাবে ভিন্ন। আর আপনি পাপের মাঝে, একটা হারাম সম্পর্কের মাঝে থেকে এটাকে জায়েজ করার চিন্তা করে এতে সুখের কথা চিন্তা করেন কিভাবে? যেখানে আল্লাহর রহমত থাকবে না সেই হারাম সম্পর্কে। যার সাথে আপনি প্রেমের হারাম সম্পর্কে জড়িয়েছেন সেকি আসলেই ভালো ব্যক্তি? আপনার জন্য উপযুক্ত? আপনি এটা জানতে পারেন না। কারণ একজন ব্যক্তির সাথে ডাইরেক্ট চলাফেরা না করলে তার সম্পর্কে আপনি সত্যিকার জিনিস ও আচার-আচরণ জানতে পারেন না।

কারো সাথে যদি ইতোমধ্যে সম্পর্ক থেকে থাকে আপনার প্রথম দায়িত্ব হবে ঐ লোকের সাথে একটা মেসেজেই সম্পর্ক বন্ধ করে দেওয়া – এর বেশি আর কোনো যোগাযোগ নয়। সে যদি আপনাকে উলটো মেসেজ দেয় কেন সম্পর্ক রাখতে চাচ্ছো না, এটার জবাবও দেবেন না। আপনি এও বলে জবাব দেবেন না যে – এটা ইসলামে হারাম, আর হারাম সম্পর্ক রাখতে চাচ্ছি না। না, এরকমও উত্তর দেবেন না। একটা উত্তর দেওয়া মানে একটা যোগাযোগ বৃদ্ধি আর শয়তান এটারই সুযোগ নেবে, আরেকটা যোগাযোগের। আপনি টোটাল অফ – একেবারে অফ হয়ে যান। হারাম সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসুন। আপনার যদি আরেকজনের প্রতি ভালোবাসা থেকেই থাকে তবে তাকে আল্লাহর অবাধ্য হতে সাহায্য করবেন না এবং নিজেও সে পথে যাবেন না। নিজেকে এবং অন্যকে জাহান্নামের পথে নিয়ে যাওয়াটা কাউকে ভালোবাসা না, শয়তানকে সাহায্য করা, নির্লজ্জ্বতা প্রসারে সহায়তা করা। আর আপনি কাউকে ভালোবাসলে অবশ্যই এসব বন্ধ করেবেন এখনই। সে যদি চিন্তাই করে ভালো কিছুর, অবশ্যই উপযুক্তভাবে বিবাহের প্রস্তাব নিয়ে আসবে তার পরিবারের পক্ষ থেকে। আর যদি সে সামর্থ্য নাই থাকে, তবে এই হারাম সম্পর্কে জড়িয়ে নিজে এবং আরেকজনকে জাহান্নামের দিকে ডাকবে না, আল্লাহর অবাধ্য হতে বলবে না।

এর মাঝে যারা হারাম সম্পর্ক স্থগিত করে বিয়ে প্রস্তাব নিয়ে আপন পিতামাতার সাথে কথা বলবে, সেখানে তারা অবশ্যই কি বলবে সেটার চেয়েও কীভাবে বলবে সেটা অধিক গুরুত্বপূর্ণ। আপনি বাবা-মাকে বিয়ের কথা বলবেন, কিন্তু অধিক গুরুত্বপূর্ণ হলো আপনি তাদেরকে কীভাবে সেটা বলছেন। আপনি এভাবে বলবেন না যে, তোমরা মানো আর নাই মানো, আমি ঐ মেয়ে/ছেলেকেই বিয়ে করবো, তোমরা যাই খুশি তাই করো। না, এভাবে বলবেন না। পিতামাতা একজন সন্তানকে তাদের জীবনের চাইতেও বেশি ভালোবাসে, আপনি তাদের সাথে এরকমভাবে কথা বলতে পারেন না। আপনার উচিৎ তাদেরকে সুন্দরভাবে কনভিন্স করা। আপনি এভাবে বলতে পারেন, আমি তাকে পছন্দ করি, তার এই এই গুণ রয়েছে, আমি দেখেছি তার এই এই সম্ভবনা রয়েছে, আমি তাকে বিয়ে করতে চাই – এখন আপনারা যদি আমাকে সহায়তা করেন আমার জন্য ভালো হয়। আর এসদব দিকে পিতামাতারও ভালোভাবে দেখা উচিৎ কোনটি ভালো হয়।

আপনি মনে করবেন না যে আপনি একজনের সাথে দুই বছর বা তিন বছর হারাম সম্পর্ক চালিয়ে গেছেন আর বিয়ে করলেই আপনি সুখি হবেন। না, একথা কখনই চিন্তা করবেন না। আপনার নিয়ত যদি সত্যইকারভাবে ভালো থাকে, আগে হারাম সম্পর্ক থেকে পিছিয়ে আসুন, আল্লাহর দিকে আসুন, তাওবাহ করুন। এরপর আপনি দক্ষ ও অভিজ্ঞ লোকের পরামর্শ নিন একে বিয়ে করা যাবে কি না। কারণ বিয়ে আপনার সারা জীবনের বিষয়, এটা যৌক্তিক বিষয়, আবেগের বিষয় নয়। সুতরাং তাওবাহ করুন আগে, আল্লাহর দিকে ফিরে এসে সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য বিশুদ্ধ নিয়ত করে ফেলুন। আপনার সারা জীবনের সম্পর্কে আবেগের ডিসিশনে হবে না, আপনাকে যৌক্তিক উপায়ে, অভিজ্ঞদের পরামর্শ করেই নিতে হবে। কারণ আপনি যে হারাম সম্পর্কের মধ্য দিয়ে গিয়েছেন, সেখানে কেবল পার্ক, রেস্টুরেন্ট আর রাতের মধুর কথার গুঞ্জরণ, সেখানে নেই কোন বাস্তবতা আর না আছে দুজনের জীবনের সামঞ্জস্তার ক্ষীণ দৃশ্যাবলী। হারাম সম্পর্কের সব চালচলন, খাওয়া দাওয়া, পার্কে গমন সবই উপরের দৃশ্য, এগুলো ফ্লপ এবং ভূয়া। আর একারণেই এসব বিয়ে বাস্তবতায় এসে ভেঙ্গে যায়। এজন্য সম্পর্কে জড়িয়ে থাকলেও আল্লাহর দিকে আগে আসুন, তাওবাহ করুন, এরপর যৌক্তিক সিদ্ধান্ত নিন যে এখানে বিয়ের মতো দীর্ঘ সম্পর্ক করা আসলেই বাস্তবতার সাথে যায় কিনা। সম্পর্ক যেন কেবল পূর্বের হারাম সম্পর্ককে টিকিয়ে রাখার জন্য না হয়, এজন্য আপনার তাওবাহ ও আল্লাহর দিকে ফিরে আসাটা সত্যিকারভাবেই জরুরী; দুনিয়ার দীর্ঘ সময়ের জন্য সুখী হওয়ার জন্য, আখিরাতের অনন্তকালের জীবনে আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য।

 

বি.দ্রঃ আমরা এটি উস্তাদ নুমান আলী খানের Girls beware: How boys "manufacture" plans!! Br. Nouman Ali Khan লেকচার থেকে বাংলাভাষাভাষীদের উপযোগী করে তৈরি করেছি। এটি হুবহু অনুবাদ নয়, বরং লেকচারের ভাবকে নিয়ে বাংলায় লিখিত।

Other News