অষ্ট্রেলিয়ার নিরাপত্তায় আবারো তোলপাড়. খেলা News

অষ্ট্রেলিয়ার নিরাপত্তায় আবারো তোলপাড়.

দুই ম্যাচের টেষ্ট সিরিজ খেলতে আগামী ১৮ আগষ্ট বাংলাদেশে আসবে অষ্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল।তবে তার আগে বাংলাদেশকে লজ্জাকর স্মৃতির রোমন্থনে সতর্কীকরণ বর্ণনা দিয়েছে অসি গণমাধ্যম।


২০০৬ সালের ঘটনা।চট্টগ্রামের মুখোমুখি বাংলাদেশ- অষ্ট্রেলিয়া।জেতা ম্যাচটি হাতছাড়া করে বাংলাদেশ।খেলা চলাকালে এক তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সাংবাদিকদের ওপর পুলিশের ন্যাক্কারজনক হামলার কথা তুলে ধরে বাংলাদেশে খেলার পরিবেশ নিয়ে ইশারা করা হয়।
ক্রিড়া সাংবাদিকদের ওপর পুলিশের এই হামলায় হতবাক হয়েছিল পুরো ক্রিকেট দুনিয়া।বাংলাদেশের সাংবাদিকরা হামলার প্রতিবাদে বয়কট করেছিল সিরিজের খবর।এই খবর পুরোনো হলেও নূতন করে সামনে নিয়ে এসেছে অসি গণমাধ্যম।নিরাপত্তা ইস্যুতেই এমন পূণ-উত্থাপন বলে জানা যায়।


সেদিন গ্যালারীর ভিতরে প্রায় ৩০ জন সংবাদকর্মীর ওপর হামলা চালায় পুলিশ।ক্রিকেট অষ্ট্রেলিয়া (সিএ)এর এক ওয়েবসাইট প্রতিবেদনে বলা হয়, 'বর্ষীয়ান এক আলোকচিত্রীর সাথে বাজে ব্যবহার করে কর্তব্যরত নিরাপত্তা প্রধান।ততক্ষণে জেসন গিলেস্পি দাপটে ১১ রানে নেই বাংলাদেশের ৩ উইকেট।এসময় মাঠের বাইরে চলছিল সাংবাদিক- পুলিশ বাকবিতণ্ডা।

সাংবাদিকদের দাবী, নিরাপত্তা প্রধানকে তাদের কাছে ক্ষমা চাইতে হবে।এ নিয়ে অবস্থা আরো খারাপের দিকে যায়।শুরু হয় পুলিশ - সাংবাদিক হাতাহাতি।একপর্যায়ে ৩০ জন সাংবাদিক আহত হন।নিরাপত্তা প্রধান তার বাহিনী দিয়ে রাইফেল এবং বুট ব্যবহার করে গুরুতর জখম করেন কয়েকজনকে।দুইজন মাথায় আঘাত পাওয়ায় জরুরী ইমার্জেস্নীতে নেয়া হয়।একজনকে বিমানে করে কোমায় আনা হয় ঢাকায়।পরবর্তীতে আহত সাংবাদিকরা আশ্রয় নেন ম্যাচ রেফারী জেফ ক্রো'র ছোট রুমে।প্রতিবাদে সাংবাদিকরা খেলা চলাকালীন সকল খবর পরিবেশন বয়কট ঘোষণা করেন'।


এই নিয়ে নিরাপত্তা ইস্যুতে যুববিশ্বকাপ থেকে বেশ কয়েকবার খুব আপত্তি সহকারেই বাংলাদেশের দিকে আঙুল তাক করলো (সিএ)।তবে বিভিন্ন সূত্রে জানা গিয়েছে এবিষয় নিয়ে মোটেই মাথা ঘামাচ্ছেনা বিসিবি।

 

Other News