১০ খাতে দক্ষ শ্রমিক প্রয়োজন ৭ কোটি ৩০ লাখ অর্থনীতি News

১০ খাতে দক্ষ শ্রমিক প্রয়োজন ৭ কোটি ৩০ লাখ

 

বাংলাদেশে দক্ষ শ্রমিকের অভাব রয়েছে ১০টি খাতে। ২০২০ সাল নাগাদ খাতগুলোয় দক্ষ শ্রমিক প্রয়োজন হবে ৭ কোটি ৩০ লাখ। উল্লিখিত সময়ের মধ্যে দক্ষ শ্রমিকের এ চাহিদা পূরণ করা না গেলে অসম্ভব হয়ে পড়তে পারে জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য অর্জন। অর্থ মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) এক যৌথ গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে।


সচিবালয়ে গতকাল আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের কাছে ‘লেবার মার্কেট অ্যান্ড স্কিল গ্যাপ ইন বাংলাদেশ: ম্যাক্রো ও মাইক্রো লেভেল স্টাডি’ শীর্ষক এ গবেষণা প্রতিবেদন হস্তান্তর করেন বিআইডিএসের মহাপরিচালক কেএএস মুর্শিদ।

গবেষণাটি পরিচালিত হয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়ের স্কিল ফর এমপ্লয়মেন্ট ইনভেস্টমেন্ট প্রোগ্রামের (এসইআইপি) আওতায়। প্রধান অতিথি হিসেবে প্রতিবেদনটির মোড়ক উন্মোচন করেন অর্থমন্ত্রী। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসডিজি-বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ, অর্থ সচিব হেদায়েতুল্লাহ আল মামুনসহ সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের ১০ খাতের শ্রমিকদের দক্ষতার অভাব রয়েছে। খাতগুলো হলো— অ্যাগ্রো ফুড প্রসেসিং, স্বাস্থ্যসেবা, হাসপাতাল ও ট্যুরিজম, তৈরি পোশাক, বস্ত্র, চামড়া, তথ্যপ্রযুক্তি, লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং, জাহাজ নির্মাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান।

২০২০ সাল নাগাদ এ ১০ খাতে দক্ষ শ্রমিকের প্রয়োজন হবে ৭ কোটি ৩০ লাখ। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন হবে তৈরি পোশাক খাতে। খাতটিতে এ সময়ের মধ্যে দক্ষ শ্রমিক নিয়োগ দিতে হবে ৬০ লাখ।

এর পরের অবস্থানে রয়েছে অ্যাগ্রো ফুড খাত। ২০২০ সালের মধ্যে খাতটিতে নিয়োগ দিতে হবে ৩০ লাখ দক্ষ শ্রমিক। বাজেটে জিডিপির যে লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে, তা অর্জন করতে হলে আমাদের এ ঘাটতি মেটাতে হবে। অন্যথায় লক্ষ্য অর্জন সম্ভব নাও হতে পারে।

এতে আরো বলা হয়, দেশের জিডিপিতে সবচেয়ে বেশি অবদান তৈরি পোশাক খাতের, যার হার ১১ দশমিক ৩ শতাংশ। ৭ দশমিক ৭ শতাংশ নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে নির্মাণ খাত। কর্মসংস্থান তৈরিতেও এ দুই খাতের অবদান ভালো।

তবে খাত দুটিসহ কৃষি ও খাদ্য প্রক্রিয়াজাত, পর্যটন, হালকা প্রকৌশল, চামড়াজাত পণ্য, স্বাস্থ্যসেবা, জাহাজ নির্মাণ ও আইসিটিতেও দক্ষ শ্রমশক্তির বেশ অভাব রয়েছে।

প্রতিবেদনের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী বলেন, এ ধরনের পর্যালোচনা প্রতিবেদন খুবই প্রয়োজন। এর মাধ্যমে দেশের কোন খাতে কী পরিমাণ দক্ষ শ্রমিকের অভাব রয়েছে, তা জানা সহজ হবে এবং সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া যাবে।

আমাদের দেশের জাহাজ নির্মাণ খাত বড় খাত হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে। এ খাতে দক্ষ শ্রমিকের অভাব রয়েছে।

এবারের বাজেটে খাতটিতে পাঁচ লাখ শ্রমিকের দক্ষতা বাড়ানোয় প্রশিক্ষণের জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছে। আগামীতে এর সংখ্যা আরো বাড়বে।

Other News