সময় বাঁচানোর ৭টি উপায় লাইফ News

সময় বাঁচানোর ৭টি উপায়

সময়কে তো আটকাতে পারবেন না, তবে বাঁচিয়ে ফেলতে পারেন কিছু সময়। ছবি: প্রিয়

কথিত আছে, “সময়ের এক ফোঁড় অসময়ের দশ ফোঁড়”। অর্থাৎ সময়মত কাজ না করতে পারলে সেই কাজ করতে আরো অনেক বেশি সময় লেগে যায়। অনেকে সময়মতো কাজ না করার জন্য সময়কেই দায়ী করেন। দিনটি যদি আরো বড় হতো কিংবা দিনটি যদি ২৪ ঘণ্টা না হয়ে ৪৮ ঘণ্টা হতো তবে অনেক ভালো হতো। সময় নিয়ে আক্ষেপের শেষ নেই। দিনকে পরিবর্তন করার ক্ষমতা আপনার নেই, তবে সময়কে আরো দক্ষতার সাথে ব্যবহার করার ক্ষমতা আপনার আছে। আর এই দক্ষতা দিয়ে আপনি বাঁচিয়ে ফেলতে পারেন আপনার সময়। আপনার কাজগুলো দক্ষতার সাথে করতে সাহায্য করবে এই কৌশলগুলো। এই কৌশলগুলো মেনে চলুন আর বাঁচান সময়।

১। সহজ কাজগুলো আগে করুন

প্রথমে যে কাজগুলো করতে সময় কম লাগে সেগুলো আগে শেষ করে ফেলুন। তারপর একে একে বড় কাজগুলো করা শুরু করুন। একটি সময় একটি কাজ করুন। “একজন মানুষের মস্তিষ্ক একই সময়ে সাত ধরণের তথ্য রাখতে পারে” এমনটি মনে করেন মনস্তত্ত্ববিদ ডেভিড ক্রসওয়েল। “আপনি যখন অন্য কোনো কাজ শুরু করেন তখন আগের কাজের তথ্য মস্তিষ্ক মুছে ফেলে। আর এটি আপনার সময় নষ্ট করে দেয়। তাই একসাথে দুইটি কাজ করা থেকে বিরত থাকুন”। এতে আপনার সময় বাঁচবে তার সাথে সাথে কাজও দক্ষতার সাথে করা সম্ভব হবে।

২। কঠিন কাজের সময় বিরতি নিন

কঠিন ও সময়সাপেক্ষ কাজ করার সময় কিছুটা বিরতি নিয়ে তারপর আবার কাজ শুরু করুন। কাজের মাঝে ২ মিনিটের বিরতি কাজকে দ্রুত করতে সাহায্য করে। “কাজের বিরতির সময় আপনার মস্তিষ্ক কাজের তথ্যগুলো সাজিয়ে ফেলে, যা আপনার কাজকে আরও সহজ করে তোলে” ক্রসওয়েল এমনটি ধারণা করেন। তবে তিনি মাল্টি টাস্কিং থেকে বিরত থাকতে বলেছেন।

৩। ইচ্ছাশক্তিকে কাজে লাগান

যেকোনো কিছুর সাফল্যের পিছনে রয়েছে ইচ্ছাশক্তি। ইচ্ছাশক্তিই পারে দক্ষভাবে কাজ সম্পূর্ণ করতে। ফ্লোরিডা স্টেট ইউনিভার্সিটির মনস্তত্ত্ববিদ রয় বোমিস্টার কিছু মানুষকে সাধারণ কিছু কাজ ইচ্ছাশক্তি দিয়ে করার জন্য বলেন এবং তিনি দেখেন তারা আগের চেয়ে আরো বেশি দক্ষতার সাথে কাজগুলো করতে পারছেন। জটিল কাজগুলো সম্পূর্ণ করার ক্ষেত্রে নিজের ইচ্ছাশক্তিকে কাজে লাগান। দিনের কঠিন সিদ্ধান্তগুলো সকালে নেওয়ার চেষ্টা করুন। এইসময় আপনি সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে পারবেন।

৪। ক্যালেন্ডার ব্যবহার করুন

গুরুত্বপূর্ণ দিন, কাজ বা কোন তথ্য ক্যালেন্ডারে মার্ক করে রাখুন। এতে আপনি দুটি সুবিধা পাবেন এক আপনি কোন কিছু ভুলে যাবেন না আর দুই আপনার নিত্যদিনের কাজের তালিকা সহজে তৈরি করে নিতে পারবেন। আপনার অফিসের ডেস্কে একটি টেবিল ক্যালেন্ডার ব্যবহার করতে পারেন।

৫। ইন্টারনেটে দক্ষতা

গুগল আমাদের অনেক সময় বাঁচিয়ে দিয়েছে। একটি তথ্য বা প্রশ্নের উত্তর জানার জন্য এখন আর ফোন করতে হয় না। গুগলে সার্চ দিলে সেই প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যায়। কিন্তু এই গুগল পরিচালনায় আরো বেশি দক্ষ হতে হবে আপনাকে, তবেই আপনি আপনার কাজগুলো আর দ্রুত এবং দক্ষতার সাথে করতে পারবেন। কাজের সময় ফোন, ইমেইল, ফেসবুক বন্ধ রাখুন। এইগুলো আপনার সময় নষ্টই করবে, আর কিছু নয়।

৬। পছন্দে সীমাবদ্ধতা আনুন

আপনি আপনার চাকরির ধরণ পরিবর্তন করতে পারবেন না কিংবা ঘরের কাজ কমিয়ে ফেলতে পারবেন না। তাই পছন্দের সীমাবন্ধতা নিয়ে আসুন। খুব বেশি অপশন আপনাকে বিভ্রান্ত করবে, এর বেশি কিছু নয়। বারাক ওবামা পরিধান করতেন শুধুমাত্র নীল এবং ছাই রঙয়ের স্যুট। যাতে তার পোশাক পছন্দে বেশি সময় ব্যয় না হয় এরজন্য শুধু দুটি রঙয়ের উপর তিনি নির্ভর ছিলেন। “খুব বেশী বাছবিচার আপনাকে পঙ্গু করে দিবে” কলেম্বিয়া ইউনিভার্সিটির বিজনেস প্রফেসর শিনা আইঙ্গার এমনটি ধারণা করেন। তাই পছন্দে সীমাবদ্ধতা নিয়ে আসুন।

৭। আগের রাতে কাজের প্রস্তুতি নিয়ে রাখুন

পরের দিনের কাজের কিছু প্রস্তুতি আগের রাতে করে রাখুন। এতে করে আপনার সময় বাঁচার পাশাপাশি কাজের দক্ষতাও বৃদ্ধি পাবে। একটি সুন্দর দিন শুরু করার জন্য রাতের ঘুম অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যদি কাজ কিছুটা করে রাখেন তবে রাতে নিশ্চিন্তে ঘুমাতে পারবেন। তবে হ্যাঁ ঘুমের মধ্যে মস্তিষ্ক সমস্যার সমধান করে থাকে। তাই ঘুমাতে যাওয়া আগে পরের দিনে কাজের সমস্যার কিছুটা চিন্তা করে রাখেন, দেখবেন দারুন একটা সমাধান পেয়ে গেছেন ঘুমের মধ্যে।

সূত্র: হাফিংটন পোষ্ট

লাইফ/সাদিয়া

Other News

হাসির আদ্যোপান্ত

হাসির আদ্যোপান্ত...

টরেন্টো জেনারেল হাসপাতালের প্লাস্টিক সার্জন ডক্টর রালফ মানকেলটো হাসতে পারেন...